Skip to main content

চিকুনগুনিয়া রিসার্চ টিম

চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হওয়া অবস্থায় হঠাৎ করে এই প্রজেক্টটির উদ্যোগ নেয়া হয়। ব্যথায় কুঁকড়ে যাওয়া অবস্থায় ফেইসবুক এবং ফোনের মাধ্যমে যোগাযোগ করে রিসার্চারদের স্বেচ্ছাসেবী টিম গঠন করা হয়। প্রাতিষ্ঠানিক এবং লজিস্টিক সাপোর্ট দিতে এগিয়ে আসে বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ ফাউন্ডেশন।

আমাদের রিসার্চ ফোকাস হচ্ছে চিকুনগুনিয়া রোগ-পরবর্তী ম্যানেজমেন্ট। চিকুনগুনিয়া রিসার্চ টিমে অংশ নিচ্ছেন দেশে এবং বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশী ডাক্তার এবং গবেষকবৃন্দ।

কোর রিসার্চ টিমের সদস্যরা হচ্ছেন -

Principal Investigators

  1. Mohammad Sorowar Hossain PhD, Adjunct Scientist, Biomedical Research Foundation, Bangladesh and Assistant Professor, School of Environmental Science, Independent University, Bangladesh (IUB)
  2. Enayetur Raheem PhD, Adjunct Scientist, Biomedical Research Foundation, Bangladesh and Data Scientist at Carolinas HealthCare System, North Carolina, USA

Co-Principal Investigators

  1. Salequl Islam PhD, Associate Professor, Dept of Microbiology, Jahangirnagar University and Adjunct Scientist, Biomedical Research Foundation, Bangladesh
  2. Muhammad Sougatul Islam, PhD, Scientist, Biomedical Research Foundation, Bangladesh
  3. Mahbub Hasan, Lecturer, Dept. Genetic Engineering and Biotechnology, Chittagong University
  4. Shahnaz Chowdhury, MBBS, MPH, PhD candidate, Assistant Professor and Head, Dept. of Community Medicine, Bangladesh University of Health Sciences
  5. Humayun Kabir Himu, MBBS, MD (Residency-phase A) Dhaka Medical College and Hospital, Dhaka, Bangladesh
  6. Abdullah Al Mosabbir, FCPS, Assistant Registrar, Mitford Hospital
  7. Miliva Mozaffor, MBBS, MD, Uttara Women Medical College, Dhaka
  8. Md. Abdullah Saeed Khan, MBBS, Medical Officer, Department of Medicine, Rajshahi Medical College Hospital

Co-Investigators

  1. Professor KM Sultanul Aziz, President, Biomedical Research Foundation, Bangladesh
  2. Professor Shah Md. Zahurul Haque Asna, Dean, Faculty of Basic Sciences, Bangladesh University of Health Sciences
  3. Professor Akram Hossain, Dept. of Microbiology, NIPSOM, Dhaka
  4. Professor Aktarun Nahar, Head, Dept. of Microbiology, Sir Salimullah Medical College, Dhaka
  5. Professor Shahina Tabassum, Head, Virology Dept, Bangabandhu Sheikh Mujib Medical University, Dhaka
  6. Professor Saif Ullah Munshi, Virology Dept, Bangabandhu Sheikh Mujib Medical University, Dhaka
  7. Professor Tashmim Farhana Dipta, BIRDEM, Dhaka
  8. Professor Abu Syed Md. Mosaddek,Uttara Adhunik Medical College
  9. Associate Professor Zohora Jameela Khan, Dhaka Medical College and Hospital
  10. Associate Professor Md. Abdul Khaleque PhD, Dean, School of Environmental Science and Management, Independent University, Bangladesh (IUB)
  11. Md.Mizanur Rahman, MBBS, PhD, Adjunct Scientist, Biomedical Research Foundation, Bangladesh
  12. Waheed Akhtar, MBBS, MPhil, National Institute of Cancer Research and Hospital, Dhaka
  13. Md. Anwar Syed, MBBS, Dept. of Medicine, Chittagong Medical College Hospital
  14. S M Yasir Arafat, MBBS, Resident, Department of Psychiatry,Bangabandhu Sheikh Mujib Medical University, Dhaka
  15. Suriya Shahaly, MBBS, MD (Physical Medicine, Phase-A), Dhaka Medical College and Hospital, Dhaka
  16. Jahid Hasan, MBBS, Research Associate, Biomedical Research Foundation, Bangladesh
  17. Marzia Faruki, Physiotherapist, Center for the Rehabilitation of the Paralysed (CRP), Mirpur and Research Associate, Biomedical Research Foundation, Bangladesh
  18. Tasnubaa Tabassum Faruki, Physiotherapist, Center for the Rehabilitation of the Paralysed (CRP), Mirpur and Research Associate, Biomedical Research Foundation, Bangladesh
  19. Taskina Akhter, MBBS, Research Associate, Biomedical Research Foundation, Bangladesh
  20. Tasnuva Faruk, MBBS, Independent University, Bangladesh (IUB) and Research Associate, Biomedical Research Foundation, Bangladesh
  21. Asif Soikot, MBBS, FCPS (Internal Medicine-final part), Adjunct Clinician Researcher, Biomedical Research Foundation, Bangladesh
  22. Rokeya Akter, PhD candidate, Queensland University of Technology (QUT) 


Research Assistants (RA)
A team of (around 100) research assistants (volunteer) will support the project.  The list of RAs will be published after the completion of first phase of the project.

Comments

Popular posts from this blog

চিকুনগুনিয়া রিসার্চঃ প্রসংগ আগামী দিনের রিসার্চার

চিকুনগুনিয়া রিসার্চ প্রজেক্টের রিসার্স এসিস্টেন্ট পজিশনের জন্য সিভি রিভিউ করলাম। ফিমেল ক্যান্ডিডেট তুলনামূলকভাবে বেশী এপ্লাই করেছে। তাদের একাডেমিক রেজাল্টও ভাল। আনন্দ লাগে যখন দেখি যে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের আমার বেশ কিছু প্রাক্তন স্টুডেন্ট এপ্লাই করেছে। সেখানে থাকতে ক্লাসের একটি অংশ থাকত রিসার্চে মটিভেইটমূলক আলোচনা। আইইউবি'তেও রিসার্চ নিয়ে ক্লাসে অনেক ডিসকাস করে থাকি। রিসার্চ করা কেন দরকার তা রিয়েল লাইফের স্টোরি দিয়ে বুঝানোর চেষ্টা থাকে। আইইউবি'তে আমার ক্লাসের বেশ কিছু স্টুডেন্ট চিকুনগুনিয়া প্রজেক্টে অংশ নিতে আগ্রহী।
টোটাল সিভি পড়েছে ৬০ টির মত। এদের মধ্য থেকে হয়ত বেশ কয়েকজন ভালমানের বিজ্ঞানী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে। এগুলো নির্ভর করবে ডেডিকেশন এবং ধৈর্য্যের উপর। আমরা তাদেরকে অনেকদূর পর্যন্ত গাইড করতে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমাদের ওভারঅল টিমে মাল্টি-ডিসিপ্লিনারি ফিল্ডের বেশ ভালমানের বিজ্ঞানী রয়েছেন। আগ্রহী এবং ডেডিকেটেড স্টুডেন্টরা চাইলে অনেক ধরনের স্কিল অর্জন করতে পারবে। এরা পিএইচডি করে দেশে ফিরলে তারা যেন সহজে প্রতিষ্ঠিত হতে পারে সেজন্যও আমাদের প্রচেষ্টা থাকবে। দেশ-সমাজ পরিবর্তন কর…

থ্যালাসেমিয়া ন্যাশনাল ইস্যু সৃষ্টিতে BRFএর রিসার্চ ইফোর্ট কী ভাবে পার্ট হলো?

Posting on behalf of Dr. Sorowar Hossain

সিঙ্গাপুর ১০+ বছর রিসার্চ লাইফ কাটিয়ে দেশে ফিরে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে জয়েন করি। যেহেতু সিংগাপুরের ল্যাব রিলেটেড স্কিল দেশে এপ্লাই করার স্কোপ নেই, তাই শুরু থেকে পাবলিক হেলথ ফিল্ডে ফোকাস করি। দেশের হেলথ সেক্টর অজানা, অপরিচিত ছিল। ইমেলে randomly যোগাযোগ করে বারডেমের ড তানভীরা সুলতানা (Tanvira Afroze Sultana) আপার সাথে যোগাযোগ হয়। আমরা দুজনে ব্লাড ক্যান্সার নিয়ে কাজ করি। ডাটা এনালাইসিস করতে গিয়ে দেখা গেল এনাফ ডাটা নেই। অন্য কোন প্রতিষ্ঠানকে জড়িত করা যায় কিনা তা তানভীরা আপাকে জানালাম। তিনি হেমালোজিস্টদের একটি মিটিং এ নিয়ে গেলেন। সেই মিটিং-এ প্রফেসর মনজুর মোরশেদ স্যারের সাথে পরিচয় হলো। অবশেষে ব্লাড ক্যান্সার সংক্রান্ত ৫০০০ কেইস এনালাইসিস করে প্রথম পাবলিকেশন হলো যেখানে ১৪টি প্রতিষ্ঠান জড়িত ছিল! তখনও থ্যালাসেমিয়ার সম্পর্কে কিছুই জানতাম না। তানভীরা আপা মাঝে মাঝে থালাসেমিয়া ইস্যু নিয়ে আপসোস করতেন। কিন্তু আমি এটির সিরিয়াসনেস সম্পর্কে জানতাম না।

আমাদের ব্লাড ক্যান্সার পেপারটি পাবলিশ হওয়ার পর নেটওয়ার্ক বেড়ে গেল। প্রফেসর মোরশেদ স্যার এবং কিছু হেমাটোলজিস…

শিশুদের ওবিসিটি বা স্হূলতা নিয়ে মায়েদের ধারণা সম্পর্কিত গবেষণার ফল প্রকাশিত হল

জেলা শহর লেভেলে প্রায় ৬৫% মা শিশুদের স্থূলতাকে কোন সমস্যা মনে করেন না বা এ সম্পর্কে কোন ধারণা নেই।মা'দের ধারণা অনুযায়ী মাত্র ৩% শিশু মোটা বা মোটা টাইপের কিন্তু বাস্তবে দেখা গেছে জামালপুর শহরে এই বয়স গ্রুপে ১৪% শিশু স্থূল (Overweight/obese)। প্রায় ৭০% মায়েরা জানেন না শিশুর স্থূলতার কারণে ভবিষ্যতে কী কী অসুখ শরীরে বাসা বাঁধতে পারে।
ঢাকা, জানুয়ারি ১২, ২০১৯:  শিশুদের ওবিসিটি বা স্হূলতা যে একটি স্বাস্থ্য সমস্যা সেটি নিয়ে আমাদের দেশে মায়েদের ধারণা খুবই কম। সম্প্রতি প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে ৬৫% মা মনে করেন শিশুদের স্হূলতা কোন স্বাস্থ্যগত সমস্যা নয়। রিপোর্টটি ইন্টারন্যশনাল জার্নাল অফ এনভারমেন্টাল রিসার্চ এন্ড পাবলিক হেলথ নামক আন্তর্জাতিক জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। 
বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে জামালপুর শহরে পরিচালিত একটি জরিপের ফলাফল থেকে এই তথ্য জানা গিয়েছে। জামালপুর শহরের ১২টি স্কুলে স্ট্র্যাটিফাইড স্যামপ্লিং করে সেকুল্যার স্কুল এবং নুরানী মাদ্রাসার ৪ থেকে ৭ বছর বয়সী শিশু এবং তাদের মায়েদের এই গবেষণায় অন্তর্ভূক্ত করা হয়। মোট ৬৫০ জন মা এবং তাদের বাচ্চারা এতে অংশগ্রহ…