Skip to main content

চিকুনগুনিয়া গবেষণা নিয়ে বিআরএফ এর নামে মিথ্যাচার

সম্প্রতি চিকুনগুনিয়া নিয়ে বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ ফাউন্ডেশনের চলমান সমীক্ষা ও গবেষণা নিয়ে কতপয় ব্যক্তি ফেইসবুকে মিথ্যা প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। আমরা ইতোমধ্যে দুইটি আইডি রিপোর্ট করেছি এবং সেগুলো রিপোর্ট করার পর থেকে আর দেখা যাচ্ছে না। ধারণা করা যায় ফেইসবুক কর্তৃপক্ষ ফেইক আইডিগুলো বন্ধ করে দিয়েছে।

ইতোপূর্বে সেসব আইডি থেকে বিভিন্ন সময়ে করা আমাদের পোস্টগুলো কপি করে তার মধ্যে মিথ্যা তথ্য সংযুক্ত করে আবার ফেইসবুকে ছড়িয়েছে। এতে করে অনেকের মনে সন্দেহ ও প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে।

আমরা উল্লেখ করতে চাই যে চিকুনগুনিয়া গবেষণা নিয়ে বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ ফাউন্ডেশন কোন ফান্ড সংগ্রহ করছে না। অংশগ্রহণকারি গবেষক ও রিসার্চ সহকারিবৃন্দ ভলান্টারি উদ্যোগে কাজ করছেন।

বাংলাদেশে বা বিদেশে যদি চিকুনগুনিয়া নিয়ে আমাদের নাম ব্যবহার করে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান ফান্ড চায় তাহলে ধরে নিন তারা ১০০% প্রতারক।

বিআরএফ এবং চিকুনগুনিয়া নিয়ে আমাদের প্রচার মাধ্যমগুলো নীচে দেয়া হলোঃ

অফিসিয়াল ওয়েব পেইজ
http://brfbd.org

অফিশিয়াল ব্লগ
http://blog.brfbd.org

ফেইসবুকে বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ ফাউন্ডেশন
https://www.facebook.com/BiomedicalResearchFoundation/

ফেইসবুকে চিকুনগুনিয়া রিসার্চ গ্রুপ
https://www.facebook.com/ChikungunyaResearch/

এর বাইরে আমাদের কোন সাইট বা ফেইসবুক পাতা নেই। ভবিষ্যতে গবেষণার জন্য নতুন পাতা খোলা হলে সেটি এই সাইটের মাধ্যমে প্রকাশ করা হবে।

এ সম্পর্কিত কোন প্রশ্ন থাকলে আমাদের ফেইসবুক পাতায় যোগাযোগ করতে আহবান জানানো হচ্ছে।

Comments

Popular posts from this blog

রিসার্চ করে কী লাভ?

বেশ কয়েক মাস আগে দেশের অন্যতম শিল্পপতির (টেক্সটাইল সেক্টরে) সাথে সাক্ষাত করেছিলাম যিনি খুব ভাল মনের মানুষ। বায়োমেডিকেল রিসার্চ ফাউন্ডেশনের কথা জেনে তিনি নিজে আমাদের সাথে কথা বলতে চেয়েছেন। সেখানে তিনি আরেক শিল্পপতি বন্ধুকেও আমাদের আলোচনা শুনতে ইনভাইট করেছিলেন। প্রায় দেড় ঘণ্টা মিটিং-এ তিনি দারিদ্য বিমোচন নিয়ে কথা বললেন। একজনকে রিক্সা কিনে দিলে কি লাভ হয় তা বুঝালেন। বস্তির শিশুদের স্কুলে পড়ানোর ইস্যুও তুললেন। কিন্তু রিসার্চ করে কি ধরনের ভিজিবল বেনিফিট দেখার স্কোপ আছে? আমরা সেসময় আমাদের থ্যালাসেমিয়া রিসার্চ প্রজেক্টের কথা বললাম। আমরা পেপার লিখছি। দেশের একটি বড় প্রবলেমকে আমরা রিসার্চের মাধ্যমে তুলে ধরার চেষ্টা করছি।এতে দেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রানালায় হয়ত উদ্যোগ নিতে পারে। আগে তো প্রবলেমকে জানতে হবে, তাই না? দেশের প্রায় এক থেকে দেড় কোটি মানুষ থ্যালাসেমিয়ার বাহক। একটি পরিবারে থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত শিশু থাকলে পুরো পরিবারটি ধবসে পড়ে।এটি বোধগম্য থাকলে তা সমাধান করা যাবে। দেশের সরকার উদোগ নিলে মিলিয়ন মিলিয়ন মানুষ সেবা পাবে।আমরা অনেক চেষ্টা করেও বুঝাতে পারলাম না। তিনি মনে করলেন সেগুলো থিউরী,বাস্ত

থ্যালাসেমিয়া ন্যাশনাল ইস্যু সৃষ্টিতে BRFএর রিসার্চ ইফোর্ট কী ভাবে পার্ট হলো?

Posting on behalf of Dr. Sorowar Hossain সিঙ্গাপুর ১০+ বছর রিসার্চ লাইফ কাটিয়ে দেশে ফিরে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে জয়েন করি। যেহেতু সিংগাপুরের ল্যাব রিলেটেড স্কিল দেশে এপ্লাই করার স্কোপ নেই, তাই শুরু থেকে পাবলিক হেলথ ফিল্ডে ফোকাস করি। দেশের হেলথ সেক্টর অজানা, অপরিচিত ছিল। ইমেলে randomly যোগাযোগ করে বারডেমের ড তানভীরা সুলতানা (Tanvira Afroze Sultana) আপার সাথে যোগাযোগ হয়। আমরা দুজনে ব্লাড ক্যান্সার নিয়ে কাজ করি। ডাটা এনালাইসিস করতে গিয়ে দেখা গেল এনাফ ডাটা নেই। অন্য কোন প্রতিষ্ঠানকে জড়িত করা যায় কিনা তা তানভীরা আপাকে জানালাম। তিনি হেমালোজিস্টদের একটি মিটিং এ নিয়ে গেলেন। সেই মিটিং-এ প্রফেসর মনজুর মোরশেদ স্যারের সাথে পরিচয় হলো। অবশেষে ব্লাড ক্যান্সার সংক্রান্ত ৫০০০ কেইস এনালাইসিস করে প্রথম পাবলিকেশন হলো যেখানে ১৪টি প্রতিষ্ঠান জড়িত ছিল! তখনও থ্যালাসেমিয়ার সম্পর্কে কিছুই জানতাম না। তানভীরা আপা মাঝে মাঝে থালাসেমিয়া ইস্যু নিয়ে আপসোস করতেন। কিন্তু আমি এটির সিরিয়াসনেস সম্পর্কে জানতাম না। আমাদের ব্লাড ক্যান্সার পেপারটি পাবলিশ হওয়ার পর নেটওয়ার্ক বেড়ে গেল। প্রফেসর মোরশেদ স্যার এবং কিছু হেমাটোলজ

শিশুদের ওবিসিটি বা স্হূলতা নিয়ে মায়েদের ধারণা সম্পর্কিত গবেষণার ফল প্রকাশিত হল

জেলা শহর লেভেলে প্রায় ৬৫% মা শিশুদের স্থূলতাকে কোন সমস্যা মনে করেন না বা এ সম্পর্কে কোন ধারণা নেই।   মা'দের ধারণা অনুযায়ী মাত্র ৩% শিশু মোটা বা মোটা টাইপের কিন্তু বাস্তবে দেখা গেছে জামালপুর শহরে এই বয়স গ্রুপে ১৪% শিশু স্থূল (Overweight/obese)। প্রায় ৭০% মায়েরা জানেন না শিশুর স্থূলতার কারণে ভবিষ্যতে কী কী অসুখ শরীরে বাসা বাঁধতে পারে। ঢাকা, জানুয়ারি ১২, ২০১৯:   শিশুদের ওবিসিটি বা স্হূলতা যে একটি স্বাস্থ্য সমস্যা সেটি নিয়ে আমাদের দেশে মায়েদের ধারণা খুবই কম। সম্প্রতি প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে ৬৫% মা মনে করেন শিশুদের স্হূলতা কোন স্বাস্থ্যগত সমস্যা নয়। রিপোর্টটি ইন্টারন্যশনাল জার্নাল অফ এনভারমেন্টাল রিসার্চ এন্ড পাবলিক হেলথ নামক আন্তর্জাতিক জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।  বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে জামালপুর শহরে পরিচালিত একটি জরিপের ফলাফল থেকে এই তথ্য জানা গিয়েছে। জামালপুর শহরের ১২টি স্কুলে স্ট্র্যাটিফাইড স্যামপ্লিং করে সেকুল্যার স্কুল এবং নুরানী মাদ্রাসার ৪ থেকে ৭ বছর বয়সী শিশু এবং তাদের মায়েদের এই গবেষণায় অন্তর্ভূক্ত করা হয়। মোট ৬৫০ জন মা এবং তাদের বাচ্চ