Skip to main content

রিসার্চ করে কী লাভ?

বেশ কয়েক মাস আগে দেশের অন্যতম শিল্পপতির (টেক্সটাইল সেক্টরে) সাথে সাক্ষাত করেছিলাম যিনি খুব ভাল মনের মানুষ। বায়োমেডিকেল রিসার্চ ফাউন্ডেশনের কথা জেনে তিনি নিজে আমাদের সাথে কথা বলতে চেয়েছেন। সেখানে তিনি আরেক শিল্পপতি বন্ধুকেও আমাদের আলোচনা শুনতে ইনভাইট করেছিলেন। প্রায় দেড় ঘণ্টা মিটিং-এ তিনি দারিদ্য বিমোচন নিয়ে কথা বললেন। একজনকে রিক্সা কিনে দিলে কি লাভ হয় তা বুঝালেন। বস্তির শিশুদের স্কুলে পড়ানোর ইস্যুও তুললেন। কিন্তু রিসার্চ করে কি ধরনের ভিজিবল বেনিফিট দেখার স্কোপ আছে? আমরা সেসময় আমাদের থ্যালাসেমিয়া রিসার্চ প্রজেক্টের কথা বললাম। আমরা পেপার লিখছি। দেশের একটি বড় প্রবলেমকে আমরা রিসার্চের মাধ্যমে তুলে ধরার চেষ্টা করছি।এতে দেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রানালায় হয়ত উদ্যোগ নিতে পারে। আগে তো প্রবলেমকে জানতে হবে, তাই না? দেশের প্রায় এক থেকে দেড় কোটি মানুষ থ্যালাসেমিয়ার বাহক। একটি পরিবারে থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত শিশু থাকলে পুরো পরিবারটি ধবসে পড়ে।এটি বোধগম্য থাকলে তা সমাধান করা যাবে। দেশের সরকার উদোগ নিলে মিলিয়ন মিলিয়ন মানুষ সেবা পাবে।আমরা অনেক চেষ্টা করেও বুঝাতে পারলাম না। তিনি মনে করলেন সেগুলো থিউরী,বাস্তবে সম্ভব না! ফেরার সময় মনে হলো সাধারন মানুষকে রিসার্চের ফাইন্ডিংস এর সুদূরপ্রসারী ইম্পেক্ট বুঝাতে আমাদের কিছু ভিজিবল আউটকাম সৃষ্টি করতে হবে।

মাত্র কয়েক মাসের ব্যবধানে আমাদের থ্যালাসেমিয়া পেপারটি পাবলিশ হয়। পরবর্তীতে এটি ফেসবুকের মাধ্যমে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ে পৌঁছে যায়। রংপুর মেডিকেল কলেজের একজন শিক্ষক তিনি ফেসবুকের মাধ্যমে সরকারের দৃষ্টিগোচর করেন। তিনি আমার সাথে পার্সোনালীও যোগাযোগ করে সেখানের আলোচনাতে অংশ নিতে বলেন। সেখানে দেশে যারা থ্যালাসেমিয়া নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে তারাও একত্রিত হন। অনেক ফলপ্রসূ আলোচনা হয়। অবশেষে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় মিটিং এর আয়োজন করেন। চিকুনগুনিয়াতে আক্রান্ত হওয়ার কারনে আমি মিটিং-এ যেতে পারিনি। তবে আমাদের পাবলিশ পেপারটি যোগসূত্র স্থাপনে ভূমিকা রেখেছে। আগত সদস্যদের সবাইকে ঐ পেপার কপি করে দেয়া হয়!থ্যালাসেমিয়া নিয়ে যাতে পলিসি হয় তা নিয়ে সেজন্য দেশের সিনিয়র বিশেষজ্ঞরা কাজ করে যাচ্ছেন। হয়ত কয়েক বছরের মধ্যে দেশের বিভিন্ন জায়গায় থ্যালাসেমিয়া স্ক্রিনিং এবং ডায়াগনোসিসের সিস্টেম গড়ে উঠবে যার ফলে মিলিয়ন মিলিয়ন মানুষ উপকৃত হবে। আমরা প্রজেক্টের শুরু থেকেই এই উদ্দেশ্যকে সময় এবং মেধা ব্যয় করেছিলাম।
আশা করি ঐ শিল্পপতির সাথে আবার সাক্ষাত করব। হয়ত তিনি এবার রিসার্চ আউটপুটের প্রয়োজনীয়তা বুঝতে পারবেন! চিকুনগুনিয়া রিসার্চ প্রজেক্ট নিয়ে আমাদের অক্লান্ত এবং নিরলস প্রচেষ্টার মাধ্যমে ভবিষ্যত রোগীরা উপকৃত হবেন। আমাদের উচিত শুধু পজিটিভ প্রচেষ্টা চালিয়ে যাওয়া। বাকীটা আল্লাহ দেখবেন।

Comments

Popular posts from this blog

চিকুনগুনিয়া রিসার্চঃ প্রসংগ আগামী দিনের রিসার্চার

চিকুনগুনিয়া রিসার্চ প্রজেক্টের রিসার্স এসিস্টেন্ট পজিশনের জন্য সিভি রিভিউ করলাম। ফিমেল ক্যান্ডিডেট তুলনামূলকভাবে বেশী এপ্লাই করেছে। তাদের একাডেমিক রেজাল্টও ভাল। আনন্দ লাগে যখন দেখি যে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের আমার বেশ কিছু প্রাক্তন স্টুডেন্ট এপ্লাই করেছে। সেখানে থাকতে ক্লাসের একটি অংশ থাকত রিসার্চে মটিভেইটমূলক আলোচনা। আইইউবি'তেও রিসার্চ নিয়ে ক্লাসে অনেক ডিসকাস করে থাকি। রিসার্চ করা কেন দরকার তা রিয়েল লাইফের স্টোরি দিয়ে বুঝানোর চেষ্টা থাকে। আইইউবি'তে আমার ক্লাসের বেশ কিছু স্টুডেন্ট চিকুনগুনিয়া প্রজেক্টে অংশ নিতে আগ্রহী। টোটাল সিভি পড়েছে ৬০ টির মত। এদের মধ্য থেকে হয়ত বেশ কয়েকজন ভালমানের বিজ্ঞানী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে। এগুলো নির্ভর করবে ডেডিকেশন এবং ধৈর্য্যের উপর। আমরা তাদেরকে অনেকদূর পর্যন্ত গাইড করতে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমাদের ওভারঅল টিমে মাল্টি-ডিসিপ্লিনারি ফিল্ডের বেশ ভালমানের বিজ্ঞানী রয়েছেন। আগ্রহী এবং ডেডিকেটেড স্টুডেন্টরা চাইলে অনেক ধরনের স্কিল অর্জন করতে পারবে। এরা পিএইচডি করে দেশে ফিরলে তারা যেন সহজে প্রতিষ্ঠিত হতে পারে সেজন্যও আমাদের প্রচেষ্টা থাকবে। দেশ-সমাজ পরিব

চিকুনগুনিয়া রিসার্চঃ সহযোগী রিসার্চারদের (Research Assistant) সিলেকশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন

চিকুনগুনিয়া রিসার্চ প্রজেক্টে সহযোগী রিসার্চার (Research Assistant) পজিশনের জন্য স্ক্রিনিং শেষে সিলেকশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। যারা নির্বাচিত হয়েছেন তাদেরকে ইমেলে জানানো হয়েছে। দেশের ১৫টি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অত্যন্ত উতসাহী স্টুডেন্টরা (৬০+) চিকুনগুনিয়া প্রজেক্টে কন্ট্রিবিউট করার উদ্দেশ্যে এপ্লিকেশন করে। এর মধ্যে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্টরা সব থেকে বেশী সিভি জমা দেয়। আমি সেখানে শিক্ষকতা করতাম এবং রিসার্চের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে ক্লাসে বেশ আলোচনা করতাম। এজন্য ব্যক্তিগতভাবে আমি আনন্দিত। বর্তমান বিশ্ববিদ্যালয় আইইউবি থেকেও ভাল রেসপন্স পেয়েছি। এদের বেশ কয়েকজন সিভি জমা না দিলেও ব্যক্তিগতভাবে আমাদের দেখা করে টিম বানিয়েছে। দেশের প্রয়োজনে ইয়াং স্টুডেন্টদের কন্ট্রিবিউট করার প্রচন্ড আগ্রহ আমাদেরকে আশা জাগায়, অনুপ্রাণিত করে। এই স্টুডেন্টদের মধ্য থেকে সম্ভবত কয়েকজন ভবিষ্যতে ভালমানের বিজ্ঞানী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবেন।তারা যেন সেই লেভেলে প্রতিষ্ঠিত হতে পারে সেজন্য আমরা মেন্টর হিসেবে তাদের জন্য কাজ করে যাবো। নির্বাচিতদের জন্য অভিনন্দন।

বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ ফাউন্ডেশন (BRF) এর চিকুনগুনিয়া রিসার্চ ফোকাস

২০০২ সালের আগ পর্যন্ত বিশ্বের ট্রপিক্যাল এলাকাগুলো মূলত বিচ্ছিন্নভাবে চিকুনগুনিয়ার আউটব্র্যাক হয়েছে। সেগুলো তেমন ভয়াবহ ছিল না। আগে এডিস এজিপ্টাই (গৃহ-পালিত) প্রজাতির মশার মাধ্যমে বাহিত হয়েছে। চিকুগুনিয়া ভাইরাসের মিউটেশনের কারনে এই ভাইরাসটি এডিস এলবোপিক্টাস প্রজাতির মশাতে এডাপ্ট করেছে। ২০০২ সালের পর থেকে যত পাওয়াফুল আউটব্র্যাক হয়েছে এর মূলে রয়েছে এই প্রজাতির মশাটি। এরা সাধারনত বাসার বাইরে (গাছের গর্তে, টায়ার, ডাবের খোলস, প্লাস্টিক কন্টেইনার ইত্যাদি) ব্রিড করে। এটির কারনে ২০০৬ সালে সাউথ ইন্ডিয়াতে প্রায় ১১ মিলিয়ন মানুষ সংক্রামিত হয়। পাবলিক ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছিল। আমাদের দেশে ২০০৩ সালে শক্তিশালী ডেংগু আউটব্র্যাকের মূলেও এডিস এলবোপিক্টাস দায়ী। আমার বিশ্বাস এবারের এপিডেমিক বা আউটব্র্যাকে মূলে এই মশাটি দায়ী। অপরিকল্পিত নগরায়ন, দুর্বল হেলথ সিস্টেমের কারনে যেকোন উন্নয়নশীল দেশের জন্য এধরনের আউটব্র্যাক বা মহামারী কন্ট্রোল করা অনেক দুরুহ ব্যাপার। তাই শুধু শুধু সরকারকে দোষারূপ করে লাভ নেই। এটি অনেক বছরের আমাদের দুর্বল সিস্টেমের কনসিকুয়েন্স। তাছাড়া আমরা এখনো সুনাগরিক হতে পারিনি। যেখানে-সেখানে ময়ল