Skip to main content

চিকুনগুনিয়া আউটব্রেক (২০১৭) নিয়ে একটি কম্প্রিহেনসিভ রিসার্চ পেপার

বহুল আলোচিত চিকুনগুনিয়া (২০১৭) নিয়ে গবেষণার বিস্তারিত ফলাফল বিখ্যাত জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

২০১৭ সালের বহুল আলোচিত চিকুনগুনিয়া আউটব্রেক নিয়ে একটি কম্প্রিহেনসিভ রিসার্চ পেপার অতি সম্প্রতি একটি বিখ্যাত জার্নালে (PLos Neglected Tropical Diseases) প্রকাশিত হয়েছে। এতে বিশদভাবে চিকুনগুনিয়ার বিভিন্ন উপসর্গ, রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসায় খরচ এবং আক্রান্ত ব্যক্তির জীবনযাত্রায় এর প্রভাব কেমন তা বিশ্লেষণ করা হয়েছে।

গত বছর এই সময়ে (জুন, ২০১৭) ঢাকা নগরীতে ভয়াবহ চিকুনগুনিয়া আউটব্রেক ছড়িয়ে পড়েছিল। পত্র- পত্রিকায়, রাস্তা-ঘাটে, অফিস-আদালতে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান- সব জায়গাতে আলোচনার বিষয় ছিল চিকুনগুনিয়া। নগরীর হাসপাতাল এবং ক্লিনিকগুলো ছিল রোগীতে পরিপূর্ণ।

এ রোগে আক্রান্ত হলে পুরো শরীরের জয়েন্টসমূহে অসহ্য ব্যথার সাথে প্রচন্ড জ্বর হয়। যার ফলে আক্রান্ত ব্যক্তির জীবনযাত্রা স্থবির হয়ে যায়। এজন্য এ রোগকে “ল্যাংডা জ্বর” হিসেবে অভিহিত করা হয়।

এর আগে বাংলাদেশে বড় স্কেলে চিকুনগুনিয়া আউটব্রেক হয়নি। রোগটির ক্লিনিক্যাল লক্ষণ এবং সার্বিক ব্যবস্থাপত্র সম্পর্কে অপরিচিত থাকার কারণে জনমনে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। আইইডিসিআর এর তথ্য অনুযায়ী ঢাকার তিনটি পাবলিক হাসপাতালে ১২০৬০ জন রোগী স্বাস্থ্যসেবা নিয়েছে। কিন্ত বিশ্বব্যাংকের তথ্যানুযায়ী দেশের প্রায় ৭০ ভাগ লোক প্রাইভেট স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে থাকে এবংঢাকা শহরে প্রায় ২০০০টি নিবন্ধিত ক্লিনিক/হাসপাতাল রয়েছে। এসব কিছু বিবেচনায় নিলে ২০১৭ সালের আউটব্রেকটি সম্ভবত অনেক বড় স্কেলে হয়েছিল।

এহেন পরিস্থিতিতে বায়োমেডিকেল রিসার্চ ফাউণ্ডেশন (বিআরএফ), একটি ঢাকা ভিত্তিক কলাবোরেটিভ রিসার্চ প্লাটফর্ম, এর উদ্যোগে ১১১ জনের একটি স্বেচ্ছাসেবী রিসার্চ টিম দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে উক্ত গবেষণাকাজটি সম্পাদন করে।

এই টিম গঠনে এবং স্টাডি মনিটরিং করতে ফেসবুক গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে। ফেসবুক প্লাটফর্মে উন্মুক্ত আহবানে সাড়া দিয়ে দেশের ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়সহ মোট ৩৪টি প্রতিষ্ঠান থেকে স্বেচ্ছাসেবী রিসার্চাররা অংশগ্রহণ করেন। বড় কোন আউটব্রেকের সময় স্বেচ্ছাসেবী টিমের মাধ্যমে কাজ করার দৃষ্টান্ত পাবলিক হেলথ রিসার্চ ফিল্ডে সম্ভবত নজির নেই। প্রজেক্টটি শুরু হয়েছিল চিকুনগুনিয়ায় তীব্রভাবে আক্রান্ত একজন হেলথ রিসার্চারের আহবানে।

দুটি সায়েন্টিফিক প্রশ্নের উত্তর জানতে প্রজেক্টটি ডিজাইন করা হয়-

১) চিকুনগুনিয়ার লক্ষণসমূহের তীব্রতার সাথে জীবনযাত্রার মানের প্রভাব কেমন এবং
২) চিকিৎসা বাবত রোগীর খরচ পারিপারিক-অর্থনৈতিক অবস্থার উপর কেমন প্রভাব ফেলেছে।

চিকুনগুনিয়া আক্রান্তের প্রথম দুই সপ্তাহে রোগীর অভিজ্ঞতার আলোকে স্টাডির ডেটা সংগ্রহ করা হয়েছিল। তবে এক্ষেত্রে, চিকুনগুনিয়ার প্রাদুর্ভাব কেমন ছিল (অর্থাৎ কতজন আক্রান্ত হয়েছে) তা এই স্টাডির মাধ্যমে জানা যাবে না।

রিসার্চার পেপারের উল্লেখযোগ্য অংশটুকু দেয়া হলো। বিস্তারিত জানতে লিংকে জার্নালের আর্টিকেল দেখুন, লিংক নিচে দেয়া আছে।

১। চিকুনগুনিয়ার ক্লিনিক্যাল প্রোফাইল সংক্রান্ত এটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় স্টাডি যেখানে ১৩২৬ জন রোগীর লক্ষণসমূহ এনালাইসিস করা হয়েছে।

২। বাংলাদেশের চিকুনগুনিয়া রোগের তীব্রতা বিশ্বের অন্যান্য জায়গায় খুব আলোচিত আউটব্রেকের (ফ্রান্স শাসিত ভারত মহাসাগরে দ্বীপ লা রিইউনিয়ন আইল্যান্ড) সমপর্যায়ে অথবা ক্ষেত্র বিশেষে তীব্রতার মাত্রা বেশী ছিল যা স্টাডিতে উঠে এসেছে।

৩। চিকুনগুনিয়ার অন্যতম লক্ষণ হল জ্বর, অস্থি:সন্ধি তথা গিড়ায় ব্যাথা, স্কিন ড়্যাশ, মাংসপেশীর ব্যাথা, মাথাব্যাথা, চুলকানী এবং শরীর ফুলে যাওয়া। চিকুনগুনিয়া আক্রান্ত হলে সাধারণত জ্বর দিয়ে লক্ষণ শুরু হয়, অতঃপর অন্যান্য লক্ষণগুলো আসে।

তবে, আমাদের গবেষণায় দেখা গেছে প্রায় ৭৫ ভাগ রোগীর সমস্যা শুরু হয়েছে জ্বরের আগে গিড়া ব্যাথা দিয়ে। বাংলাদেশের চিকুনগুনিয়ার এই লক্ষণটি ইউনিক (Novel finding) যার মাধ্যমে ডেংগু এবং চিকুনগুনিয়াকে চিকিতসকরা আলাদা করতে সক্ষম হতে পারেন। এর আগে এই লক্ষণটি সায়েন্টিফিক্যালি জোড়ালোভাবে রিপোর্ট হয়নি।


৪। আমাদের গবেষণায়, ব্যাথার তীব্রতা পরিমাপ করতে নিউমেরিক্যাল পেইন রেটিং-স্কেল নামক একটি স্বীকৃত পরিমাপক ব্যবহার করা হয়েছে। এই স্কেল অনুযায়ী রোগীকে ব্যাথার তীব্রতা অনুপাতে ১ থেকে ১০ পর্যন্ত যে কোন একটি নাম্বার দিতে বলা হয়। ব্যাথার তীব্রতা কম হলে ১ এবং ব্যতার তীব্রতা বেশী হলে ১০। এই স্কেল অনুসারে আমাদের গবেষণায় রোগীদের গড় ব্যাথার তীব্রতা ছিলো ৮.৩ যা কিনা তীব্র মাত্রার অন্তর্গত।

৫। প্রায় ৫৬% রোগীর চার এর অধিক গিড়া আক্রান্ত পাওয়া গিয়েছে এবং প্রায় ৪০% রোগীর ক্ষেত্রে আক্রান্ত গিড়ার সংখ্যা ছিলো দুই থেকে চারটি। দেহের বিভিন্ন গিড়ার মধ্যে পায়ের গোড়ালী এবং হাতের কবজির সন্ধি আক্রান্ত হয়েছিলো সবচেয়ে বেশী।

৬। ব্যাথার জন্য প্রায় ৭০% রোগীর দৈনন্দিন কাজে ব্যঘাত ঘটে এবং প্রায় ৬৬ শতাংশ রোগীর ঘুমে ব্যঘাত ঘটে।

৭। আমাদের গবেষণায় বয়স, লিঙ্গ এবং পূর্বাপর শারিরীক অবস্থার উপর ভিত্তি করে রোগের লক্ষণের ভিন্নতা পরিলক্ষিত হয়। পনের বছরের নিচের বয়সী বাচ্চাদের ক্ষেত্রে দুই থেকে চারটি গিড়ায় ব্যাথা এবং স্কিন ড়্যাশ বেশী দেখা যায়। অন্যদিকে ষাটোর্ধ্ব রোগীদের ক্ষেত্রে গিড়া ফুলে যাওয়া ছিলো অন্যতম প্রধান লক্ষণ। প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রে ব্যথার তীব্রতা অভিযোগ ছিল সবচেয়ে বেশী।

৮। এ গবেষণা দেখা গেছে চিকুনগুনিয়ার কারণে ৯৫% রোগী সম্পূর্ণভাবে বিছানায় পড়ে থাকতে হয়েছে। মোট আক্রান্ত রোগীর ৬৫ ভাগ ৭-১০ দিন পর্যন্ত ঘরে এবং বাইরের (যেমন অফিস, স্কুল, বিশ্ববিদ্যালয়) কোন কাজ করতে পারেননি । বাকী ৩০ ভাগ রোগী কমপক্ষে ১০ দিনের বেশী কোন কাজই ঠিক মত করতে পারেন নি।

৯। এ মহামারীতে অর্থনৈতিকভাবে সবচেয়ে বেশী চাপে ছিলো তারা যাদের মাসিক আয় ২৫০০০ টাকার কম ছিল। এমন কি দীর্ঘদিন কাজে অনুপস্থিত থাকার কারণে কারও কারও ক্ষেত্রে চাকুরী চলে যাওয়ার ঘটনাও পাওয়া গেছে।

১০। বৈজ্ঞানিকভাবে স্বীকৃত ও বহুল ব্যবহৃত প্রশ্নমালা দিয়ে জীবনযাত্রার মান (কোয়ালিটিফ অফ লাইফ) যাচাই করতে গিয়ে দেখা গেছে যাদের বয়স ৬০-এর বেশী, যাদের মাসিক আয় ৫০০০০ টাকার বেশী, চাকুরীজীবি এবং ব্যবসায়ীদের জীবনযাত্রার মান অন্যদের তুলনায় বেশী কমে গিয়েছিলো।

এ গবেষণার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের চিকুনগুনিয়ার প্রধান লক্ষণগুলো চিহ্নিত করা সম্ভব হয়েছে এবং জীবনযাত্রার উপর এর প্রভাব নিয়ে নিয়মতান্ত্রিক স্টাডি করা হয়েছে। আমরা আশা করছি এই গবেষণা জাতীয় পর্যায়ে চিকুনগুনিয়া রোগ নির্ণয়, চিকিৎসা এবং প্রতিরোধে নীতিনির্ধারনে সহায়ক হবে এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রায় একটি গুরুত্বপূর্ণ দালিলীক অবদান হিসেবে থেকে যাবে।

মূল গবেষণাপত্রের ঠিকানা:
http://journals.plos.org/plosntds/article?id=10.1371/journal.pntd.0006561

Comments

Popular posts from this blog

থ্যালাসেমিয়া ন্যাশনাল ইস্যু সৃষ্টিতে BRFএর রিসার্চ ইফোর্ট কী ভাবে পার্ট হলো?

Posting on behalf of Dr. Sorowar Hossain সিঙ্গাপুর ১০+ বছর রিসার্চ লাইফ কাটিয়ে দেশে ফিরে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে জয়েন করি। যেহেতু সিংগাপুরের ল্যাব রিলেটেড স্কিল দেশে এপ্লাই করার স্কোপ নেই, তাই শুরু থেকে পাবলিক হেলথ ফিল্ডে ফোকাস করি। দেশের হেলথ সেক্টর অজানা, অপরিচিত ছিল। ইমেলে randomly যোগাযোগ করে বারডেমের ড তানভীরা সুলতানা (Tanvira Afroze Sultana) আপার সাথে যোগাযোগ হয়। আমরা দুজনে ব্লাড ক্যান্সার নিয়ে কাজ করি। ডাটা এনালাইসিস করতে গিয়ে দেখা গেল এনাফ ডাটা নেই। অন্য কোন প্রতিষ্ঠানকে জড়িত করা যায় কিনা তা তানভীরা আপাকে জানালাম। তিনি হেমালোজিস্টদের একটি মিটিং এ নিয়ে গেলেন। সেই মিটিং-এ প্রফেসর মনজুর মোরশেদ স্যারের সাথে পরিচয় হলো। অবশেষে ব্লাড ক্যান্সার সংক্রান্ত ৫০০০ কেইস এনালাইসিস করে প্রথম পাবলিকেশন হলো যেখানে ১৪টি প্রতিষ্ঠান জড়িত ছিল! তখনও থ্যালাসেমিয়ার সম্পর্কে কিছুই জানতাম না। তানভীরা আপা মাঝে মাঝে থালাসেমিয়া ইস্যু নিয়ে আপসোস করতেন। কিন্তু আমি এটির সিরিয়াসনেস সম্পর্কে জানতাম না। আমাদের ব্লাড ক্যান্সার পেপারটি পাবলিশ হওয়ার পর নেটওয়ার্ক বেড়ে গেল। প্রফেসর মোরশেদ স্যার এবং কিছু হেমাটোলজ

চিকুনগুনিয়া রিসার্চঃ সহযোগী রিসার্চারদের (Research Assistant) সিলেকশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন

চিকুনগুনিয়া রিসার্চ প্রজেক্টে সহযোগী রিসার্চার (Research Assistant) পজিশনের জন্য স্ক্রিনিং শেষে সিলেকশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। যারা নির্বাচিত হয়েছেন তাদেরকে ইমেলে জানানো হয়েছে। দেশের ১৫টি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অত্যন্ত উতসাহী স্টুডেন্টরা (৬০+) চিকুনগুনিয়া প্রজেক্টে কন্ট্রিবিউট করার উদ্দেশ্যে এপ্লিকেশন করে। এর মধ্যে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্টরা সব থেকে বেশী সিভি জমা দেয়। আমি সেখানে শিক্ষকতা করতাম এবং রিসার্চের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে ক্লাসে বেশ আলোচনা করতাম। এজন্য ব্যক্তিগতভাবে আমি আনন্দিত। বর্তমান বিশ্ববিদ্যালয় আইইউবি থেকেও ভাল রেসপন্স পেয়েছি। এদের বেশ কয়েকজন সিভি জমা না দিলেও ব্যক্তিগতভাবে আমাদের দেখা করে টিম বানিয়েছে। দেশের প্রয়োজনে ইয়াং স্টুডেন্টদের কন্ট্রিবিউট করার প্রচন্ড আগ্রহ আমাদেরকে আশা জাগায়, অনুপ্রাণিত করে। এই স্টুডেন্টদের মধ্য থেকে সম্ভবত কয়েকজন ভবিষ্যতে ভালমানের বিজ্ঞানী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবেন।তারা যেন সেই লেভেলে প্রতিষ্ঠিত হতে পারে সেজন্য আমরা মেন্টর হিসেবে তাদের জন্য কাজ করে যাবো। নির্বাচিতদের জন্য অভিনন্দন।

চিকুনগুনিয়া রিসার্চ টিম

চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হওয়া অবস্থায় হঠাৎ করে এই প্রজেক্টটির উদ্যোগ নেয়া হয়। ব্যথায় কুঁকড়ে যাওয়া অবস্থায় ফেইসবুক এবং ফোনের মাধ্যমে যোগাযোগ করে রিসার্চারদের স্বেচ্ছাসেবী টিম গঠন করা হয়। প্রাতিষ্ঠানিক এবং লজিস্টিক সাপোর্ট দিতে এগিয়ে আসে বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ ফাউন্ডেশন। আমাদের রিসার্চ ফোকাস হচ্ছে চিকুনগুনিয়া রোগ-পরবর্তী ম্যানেজমেন্ট। চিকুনগুনিয়া রিসার্চ টিমে অংশ নিচ্ছেন দেশে এবং বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশী ডাক্তার এবং গবেষকবৃন্দ। কোর রিসার্চ টিমের সদস্যরা হচ্ছেন - Principal Investigators Mohammad Sorowar Hossain PhD, Adjunct Scientist, Biomedical Research Foundation, Bangladesh and Assistant Professor, School of Environmental Science, Independent University, Bangladesh (IUB) Enayetur Raheem PhD, Adjunct Scientist, Biomedical Research Foundation, Bangladesh and Data Scientist at Carolinas HealthCare System, North Carolina, USA Co-Principal Investigators Salequl Islam PhD, Associate Professor, Dept of Microbiology, Jahangirnagar University and Adjunct Scientist, Biomedical Resear