Skip to main content

চিকুনগুনিয়া আউটব্রেক (২০১৭) নিয়ে একটি কম্প্রিহেনসিভ রিসার্চ পেপার

বহুল আলোচিত চিকুনগুনিয়া (২০১৭) নিয়ে গবেষণার বিস্তারিত ফলাফল বিখ্যাত জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

২০১৭ সালের বহুল আলোচিত চিকুনগুনিয়া আউটব্রেক নিয়ে একটি কম্প্রিহেনসিভ রিসার্চ পেপার অতি সম্প্রতি একটি বিখ্যাত জার্নালে (PLos Neglected Tropical Diseases) প্রকাশিত হয়েছে। এতে বিশদভাবে চিকুনগুনিয়ার বিভিন্ন উপসর্গ, রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসায় খরচ এবং আক্রান্ত ব্যক্তির জীবনযাত্রায় এর প্রভাব কেমন তা বিশ্লেষণ করা হয়েছে।

গত বছর এই সময়ে (জুন, ২০১৭) ঢাকা নগরীতে ভয়াবহ চিকুনগুনিয়া আউটব্রেক ছড়িয়ে পড়েছিল। পত্র- পত্রিকায়, রাস্তা-ঘাটে, অফিস-আদালতে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান- সব জায়গাতে আলোচনার বিষয় ছিল চিকুনগুনিয়া। নগরীর হাসপাতাল এবং ক্লিনিকগুলো ছিল রোগীতে পরিপূর্ণ।

এ রোগে আক্রান্ত হলে পুরো শরীরের জয়েন্টসমূহে অসহ্য ব্যথার সাথে প্রচন্ড জ্বর হয়। যার ফলে আক্রান্ত ব্যক্তির জীবনযাত্রা স্থবির হয়ে যায়। এজন্য এ রোগকে “ল্যাংডা জ্বর” হিসেবে অভিহিত করা হয়।

এর আগে বাংলাদেশে বড় স্কেলে চিকুনগুনিয়া আউটব্রেক হয়নি। রোগটির ক্লিনিক্যাল লক্ষণ এবং সার্বিক ব্যবস্থাপত্র সম্পর্কে অপরিচিত থাকার কারণে জনমনে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। আইইডিসিআর এর তথ্য অনুযায়ী ঢাকার তিনটি পাবলিক হাসপাতালে ১২০৬০ জন রোগী স্বাস্থ্যসেবা নিয়েছে। কিন্ত বিশ্বব্যাংকের তথ্যানুযায়ী দেশের প্রায় ৭০ ভাগ লোক প্রাইভেট স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে থাকে এবংঢাকা শহরে প্রায় ২০০০টি নিবন্ধিত ক্লিনিক/হাসপাতাল রয়েছে। এসব কিছু বিবেচনায় নিলে ২০১৭ সালের আউটব্রেকটি সম্ভবত অনেক বড় স্কেলে হয়েছিল।

এহেন পরিস্থিতিতে বায়োমেডিকেল রিসার্চ ফাউণ্ডেশন (বিআরএফ), একটি ঢাকা ভিত্তিক কলাবোরেটিভ রিসার্চ প্লাটফর্ম, এর উদ্যোগে ১১১ জনের একটি স্বেচ্ছাসেবী রিসার্চ টিম দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে উক্ত গবেষণাকাজটি সম্পাদন করে।

এই টিম গঠনে এবং স্টাডি মনিটরিং করতে ফেসবুক গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে। ফেসবুক প্লাটফর্মে উন্মুক্ত আহবানে সাড়া দিয়ে দেশের ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়সহ মোট ৩৪টি প্রতিষ্ঠান থেকে স্বেচ্ছাসেবী রিসার্চাররা অংশগ্রহণ করেন। বড় কোন আউটব্রেকের সময় স্বেচ্ছাসেবী টিমের মাধ্যমে কাজ করার দৃষ্টান্ত পাবলিক হেলথ রিসার্চ ফিল্ডে সম্ভবত নজির নেই। প্রজেক্টটি শুরু হয়েছিল চিকুনগুনিয়ায় তীব্রভাবে আক্রান্ত একজন হেলথ রিসার্চারের আহবানে।

দুটি সায়েন্টিফিক প্রশ্নের উত্তর জানতে প্রজেক্টটি ডিজাইন করা হয়-

১) চিকুনগুনিয়ার লক্ষণসমূহের তীব্রতার সাথে জীবনযাত্রার মানের প্রভাব কেমন এবং
২) চিকিৎসা বাবত রোগীর খরচ পারিপারিক-অর্থনৈতিক অবস্থার উপর কেমন প্রভাব ফেলেছে।

চিকুনগুনিয়া আক্রান্তের প্রথম দুই সপ্তাহে রোগীর অভিজ্ঞতার আলোকে স্টাডির ডেটা সংগ্রহ করা হয়েছিল। তবে এক্ষেত্রে, চিকুনগুনিয়ার প্রাদুর্ভাব কেমন ছিল (অর্থাৎ কতজন আক্রান্ত হয়েছে) তা এই স্টাডির মাধ্যমে জানা যাবে না।

রিসার্চার পেপারের উল্লেখযোগ্য অংশটুকু দেয়া হলো। বিস্তারিত জানতে লিংকে জার্নালের আর্টিকেল দেখুন, লিংক নিচে দেয়া আছে।

১। চিকুনগুনিয়ার ক্লিনিক্যাল প্রোফাইল সংক্রান্ত এটি বিশ্বের সবচেয়ে বড় স্টাডি যেখানে ১৩২৬ জন রোগীর লক্ষণসমূহ এনালাইসিস করা হয়েছে।

২। বাংলাদেশের চিকুনগুনিয়া রোগের তীব্রতা বিশ্বের অন্যান্য জায়গায় খুব আলোচিত আউটব্রেকের (ফ্রান্স শাসিত ভারত মহাসাগরে দ্বীপ লা রিইউনিয়ন আইল্যান্ড) সমপর্যায়ে অথবা ক্ষেত্র বিশেষে তীব্রতার মাত্রা বেশী ছিল যা স্টাডিতে উঠে এসেছে।

৩। চিকুনগুনিয়ার অন্যতম লক্ষণ হল জ্বর, অস্থি:সন্ধি তথা গিড়ায় ব্যাথা, স্কিন ড়্যাশ, মাংসপেশীর ব্যাথা, মাথাব্যাথা, চুলকানী এবং শরীর ফুলে যাওয়া। চিকুনগুনিয়া আক্রান্ত হলে সাধারণত জ্বর দিয়ে লক্ষণ শুরু হয়, অতঃপর অন্যান্য লক্ষণগুলো আসে।

তবে, আমাদের গবেষণায় দেখা গেছে প্রায় ৭৫ ভাগ রোগীর সমস্যা শুরু হয়েছে জ্বরের আগে গিড়া ব্যাথা দিয়ে। বাংলাদেশের চিকুনগুনিয়ার এই লক্ষণটি ইউনিক (Novel finding) যার মাধ্যমে ডেংগু এবং চিকুনগুনিয়াকে চিকিতসকরা আলাদা করতে সক্ষম হতে পারেন। এর আগে এই লক্ষণটি সায়েন্টিফিক্যালি জোড়ালোভাবে রিপোর্ট হয়নি।


৪। আমাদের গবেষণায়, ব্যাথার তীব্রতা পরিমাপ করতে নিউমেরিক্যাল পেইন রেটিং-স্কেল নামক একটি স্বীকৃত পরিমাপক ব্যবহার করা হয়েছে। এই স্কেল অনুযায়ী রোগীকে ব্যাথার তীব্রতা অনুপাতে ১ থেকে ১০ পর্যন্ত যে কোন একটি নাম্বার দিতে বলা হয়। ব্যাথার তীব্রতা কম হলে ১ এবং ব্যতার তীব্রতা বেশী হলে ১০। এই স্কেল অনুসারে আমাদের গবেষণায় রোগীদের গড় ব্যাথার তীব্রতা ছিলো ৮.৩ যা কিনা তীব্র মাত্রার অন্তর্গত।

৫। প্রায় ৫৬% রোগীর চার এর অধিক গিড়া আক্রান্ত পাওয়া গিয়েছে এবং প্রায় ৪০% রোগীর ক্ষেত্রে আক্রান্ত গিড়ার সংখ্যা ছিলো দুই থেকে চারটি। দেহের বিভিন্ন গিড়ার মধ্যে পায়ের গোড়ালী এবং হাতের কবজির সন্ধি আক্রান্ত হয়েছিলো সবচেয়ে বেশী।

৬। ব্যাথার জন্য প্রায় ৭০% রোগীর দৈনন্দিন কাজে ব্যঘাত ঘটে এবং প্রায় ৬৬ শতাংশ রোগীর ঘুমে ব্যঘাত ঘটে।

৭। আমাদের গবেষণায় বয়স, লিঙ্গ এবং পূর্বাপর শারিরীক অবস্থার উপর ভিত্তি করে রোগের লক্ষণের ভিন্নতা পরিলক্ষিত হয়। পনের বছরের নিচের বয়সী বাচ্চাদের ক্ষেত্রে দুই থেকে চারটি গিড়ায় ব্যাথা এবং স্কিন ড়্যাশ বেশী দেখা যায়। অন্যদিকে ষাটোর্ধ্ব রোগীদের ক্ষেত্রে গিড়া ফুলে যাওয়া ছিলো অন্যতম প্রধান লক্ষণ। প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রে ব্যথার তীব্রতা অভিযোগ ছিল সবচেয়ে বেশী।

৮। এ গবেষণা দেখা গেছে চিকুনগুনিয়ার কারণে ৯৫% রোগী সম্পূর্ণভাবে বিছানায় পড়ে থাকতে হয়েছে। মোট আক্রান্ত রোগীর ৬৫ ভাগ ৭-১০ দিন পর্যন্ত ঘরে এবং বাইরের (যেমন অফিস, স্কুল, বিশ্ববিদ্যালয়) কোন কাজ করতে পারেননি । বাকী ৩০ ভাগ রোগী কমপক্ষে ১০ দিনের বেশী কোন কাজই ঠিক মত করতে পারেন নি।

৯। এ মহামারীতে অর্থনৈতিকভাবে সবচেয়ে বেশী চাপে ছিলো তারা যাদের মাসিক আয় ২৫০০০ টাকার কম ছিল। এমন কি দীর্ঘদিন কাজে অনুপস্থিত থাকার কারণে কারও কারও ক্ষেত্রে চাকুরী চলে যাওয়ার ঘটনাও পাওয়া গেছে।

১০। বৈজ্ঞানিকভাবে স্বীকৃত ও বহুল ব্যবহৃত প্রশ্নমালা দিয়ে জীবনযাত্রার মান (কোয়ালিটিফ অফ লাইফ) যাচাই করতে গিয়ে দেখা গেছে যাদের বয়স ৬০-এর বেশী, যাদের মাসিক আয় ৫০০০০ টাকার বেশী, চাকুরীজীবি এবং ব্যবসায়ীদের জীবনযাত্রার মান অন্যদের তুলনায় বেশী কমে গিয়েছিলো।

এ গবেষণার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের চিকুনগুনিয়ার প্রধান লক্ষণগুলো চিহ্নিত করা সম্ভব হয়েছে এবং জীবনযাত্রার উপর এর প্রভাব নিয়ে নিয়মতান্ত্রিক স্টাডি করা হয়েছে। আমরা আশা করছি এই গবেষণা জাতীয় পর্যায়ে চিকুনগুনিয়া রোগ নির্ণয়, চিকিৎসা এবং প্রতিরোধে নীতিনির্ধারনে সহায়ক হবে এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রায় একটি গুরুত্বপূর্ণ দালিলীক অবদান হিসেবে থেকে যাবে।

মূল গবেষণাপত্রের ঠিকানা:
http://journals.plos.org/plosntds/article?id=10.1371/journal.pntd.0006561

Comments

Popular posts from this blog

চিকুনগুনিয়া রিসার্চঃ প্রসংগ আগামী দিনের রিসার্চার

চিকুনগুনিয়া রিসার্চ প্রজেক্টের রিসার্স এসিস্টেন্ট পজিশনের জন্য সিভি রিভিউ করলাম। ফিমেল ক্যান্ডিডেট তুলনামূলকভাবে বেশী এপ্লাই করেছে। তাদের একাডেমিক রেজাল্টও ভাল। আনন্দ লাগে যখন দেখি যে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের আমার বেশ কিছু প্রাক্তন স্টুডেন্ট এপ্লাই করেছে। সেখানে থাকতে ক্লাসের একটি অংশ থাকত রিসার্চে মটিভেইটমূলক আলোচনা। আইইউবি'তেও রিসার্চ নিয়ে ক্লাসে অনেক ডিসকাস করে থাকি। রিসার্চ করা কেন দরকার তা রিয়েল লাইফের স্টোরি দিয়ে বুঝানোর চেষ্টা থাকে। আইইউবি'তে আমার ক্লাসের বেশ কিছু স্টুডেন্ট চিকুনগুনিয়া প্রজেক্টে অংশ নিতে আগ্রহী। টোটাল সিভি পড়েছে ৬০ টির মত। এদের মধ্য থেকে হয়ত বেশ কয়েকজন ভালমানের বিজ্ঞানী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবে। এগুলো নির্ভর করবে ডেডিকেশন এবং ধৈর্য্যের উপর। আমরা তাদেরকে অনেকদূর পর্যন্ত গাইড করতে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমাদের ওভারঅল টিমে মাল্টি-ডিসিপ্লিনারি ফিল্ডের বেশ ভালমানের বিজ্ঞানী রয়েছেন। আগ্রহী এবং ডেডিকেটেড স্টুডেন্টরা চাইলে অনেক ধরনের স্কিল অর্জন করতে পারবে। এরা পিএইচডি করে দেশে ফিরলে তারা যেন সহজে প্রতিষ্ঠিত হতে পারে সেজন্যও আমাদের প্রচেষ্টা থাকবে। দেশ-সমাজ পরিব

চিকুনগুনিয়া রিসার্চঃ সহযোগী রিসার্চারদের (Research Assistant) সিলেকশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন

চিকুনগুনিয়া রিসার্চ প্রজেক্টে সহযোগী রিসার্চার (Research Assistant) পজিশনের জন্য স্ক্রিনিং শেষে সিলেকশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। যারা নির্বাচিত হয়েছেন তাদেরকে ইমেলে জানানো হয়েছে। দেশের ১৫টি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অত্যন্ত উতসাহী স্টুডেন্টরা (৬০+) চিকুনগুনিয়া প্রজেক্টে কন্ট্রিবিউট করার উদ্দেশ্যে এপ্লিকেশন করে। এর মধ্যে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্টরা সব থেকে বেশী সিভি জমা দেয়। আমি সেখানে শিক্ষকতা করতাম এবং রিসার্চের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে ক্লাসে বেশ আলোচনা করতাম। এজন্য ব্যক্তিগতভাবে আমি আনন্দিত। বর্তমান বিশ্ববিদ্যালয় আইইউবি থেকেও ভাল রেসপন্স পেয়েছি। এদের বেশ কয়েকজন সিভি জমা না দিলেও ব্যক্তিগতভাবে আমাদের দেখা করে টিম বানিয়েছে। দেশের প্রয়োজনে ইয়াং স্টুডেন্টদের কন্ট্রিবিউট করার প্রচন্ড আগ্রহ আমাদেরকে আশা জাগায়, অনুপ্রাণিত করে। এই স্টুডেন্টদের মধ্য থেকে সম্ভবত কয়েকজন ভবিষ্যতে ভালমানের বিজ্ঞানী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হবেন।তারা যেন সেই লেভেলে প্রতিষ্ঠিত হতে পারে সেজন্য আমরা মেন্টর হিসেবে তাদের জন্য কাজ করে যাবো। নির্বাচিতদের জন্য অভিনন্দন।

বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ ফাউন্ডেশন (BRF) এর চিকুনগুনিয়া রিসার্চ ফোকাস

২০০২ সালের আগ পর্যন্ত বিশ্বের ট্রপিক্যাল এলাকাগুলো মূলত বিচ্ছিন্নভাবে চিকুনগুনিয়ার আউটব্র্যাক হয়েছে। সেগুলো তেমন ভয়াবহ ছিল না। আগে এডিস এজিপ্টাই (গৃহ-পালিত) প্রজাতির মশার মাধ্যমে বাহিত হয়েছে। চিকুগুনিয়া ভাইরাসের মিউটেশনের কারনে এই ভাইরাসটি এডিস এলবোপিক্টাস প্রজাতির মশাতে এডাপ্ট করেছে। ২০০২ সালের পর থেকে যত পাওয়াফুল আউটব্র্যাক হয়েছে এর মূলে রয়েছে এই প্রজাতির মশাটি। এরা সাধারনত বাসার বাইরে (গাছের গর্তে, টায়ার, ডাবের খোলস, প্লাস্টিক কন্টেইনার ইত্যাদি) ব্রিড করে। এটির কারনে ২০০৬ সালে সাউথ ইন্ডিয়াতে প্রায় ১১ মিলিয়ন মানুষ সংক্রামিত হয়। পাবলিক ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছিল। আমাদের দেশে ২০০৩ সালে শক্তিশালী ডেংগু আউটব্র্যাকের মূলেও এডিস এলবোপিক্টাস দায়ী। আমার বিশ্বাস এবারের এপিডেমিক বা আউটব্র্যাকে মূলে এই মশাটি দায়ী। অপরিকল্পিত নগরায়ন, দুর্বল হেলথ সিস্টেমের কারনে যেকোন উন্নয়নশীল দেশের জন্য এধরনের আউটব্র্যাক বা মহামারী কন্ট্রোল করা অনেক দুরুহ ব্যাপার। তাই শুধু শুধু সরকারকে দোষারূপ করে লাভ নেই। এটি অনেক বছরের আমাদের দুর্বল সিস্টেমের কনসিকুয়েন্স। তাছাড়া আমরা এখনো সুনাগরিক হতে পারিনি। যেখানে-সেখানে ময়ল